• বুধবার     ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮  

      ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ঢাকা

    সফলতা ও উন্নয়নে দরকার সঠিক তথ্য

    বি আওয়ার ফ্রেন্ডস

    যদি কূটনীতিক হতে চাও

    ফিলিপাইনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আসাদ আলম সিয়ামের সঙ্গে দেশটির সাবেক পররাষ্ট্র সচিব পারফেক্টো ইয়াজে জুনিয়র । ছবি: সংগৃহীত

    যদি কূটনীতিক হতে চাও

    আফজাল করিম | ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ২:২৭ অপরাহ্ণ

    স্থপতি হওয়ার বাসনায় ভর্তি হয়েছিলাম বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট)। কূটনীতিক হওয়ার ভাবনাটা কখনো মাথায় আসেনি। পরে তো জীবনের গতিপথটাই গেল বদলে। তবে এটা স্বীকার করব, অন্য অনেকের মতো আমারও সরকারি চাকরির প্রতি আগ্রহ ছিল।

    ২৩ বছরের কাজের অভিজ্ঞতায় বলতে পারি, প্রথম পছন্দ হিসেবে বিসিএস পরীক্ষায় কূটনীতি রাখলে অন্যভাবে নিজেকে তৈরি করতাম। সে ক্ষেত্রে পড়াশোনা যে বিষয়েই করি না কেন, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও সমসাময়িক বিষয়, রাজনীতি এবং জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক গুরুত্বপূর্ণ সংস্থাগুলোর কাজের ধারা নিয়ে খুব স্পষ্ট ধারণা থাকলে ভালো। আরও পরিষ্কার করে বললে বলা যায়, প্রাতিষ্ঠানিক পড়াশোনার বাইরে ইতিহাস, অর্থনীতি, বাণিজ্য এসব বিষয়ে পড়াশোনার পাশাপাশি গণমাধ্যমের ওপর সতর্ক দৃষ্টি রাখা খুব জরুরি।

    একজন কূটনীতিক পেশাগত কাজের বিভিন্ন স্তরে দেশের সেলসম্যান বা বিক্রয়কর্মী হিসেবে নিজেকে তুলে ধরেন। তাই নিজের দেশ সম্পর্কে ভালোভাবে জানাটা অপরিহার্য। দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, শিল্পকলা, সাহিত্যসহ নানা বিষয়ে জানতে ও বুঝতে হবে। এ বিষয়গুলো আত্মস্থ করে নিজের মধ্যে এক ধরনের গর্ববোধের জায়গা তৈরি করাটা জরুরি। দেশ নিয়ে নিজের মধ্যে আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে, তবেই অন্য দেশের কাছে নিজের দেশকে তুলে ধরা যাবে।

    একজন কূটনীতিককে যোগাযোগ বা ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে খুব সাবলীল হতে হয়। ভালো বাংলা ও ইংরেজি জানার কোনো বিকল্প নেই। কারণ, নিজেকে অন্যের কাছে সঠিকভাবে তুলে ধরতে হবে। আমি কী ভাবছি, আমার সঙ্গে অন্যের সেতুবন্ধন কীভাবে হতে পারে সেটা স্পষ্টভাবে তুলে ধরতে না পারলে, আমি এগোতে পারব না। তাই সহজ ও সাবলীলভাবে নিজেকে উপস্থাপনের প্রস্তুতি থাকতে হবে। যাঁরা কূটনীতিক হতে আগ্রহী, তাঁদের বাংলা ও ইংরেজির পাশাপাশি তৃতীয় একটি ভাষায় দক্ষতা অর্জনের চেষ্টা করা উচিত। এ ক্ষেত্রে তাঁরা জার্মান, স্প্যানিশ, আরবি ও মান্দারিন ভাষার কথা ভাবতে পারেন।

    ভাষার দক্ষতা যে কতখানি জরুরি, সেটা বোঝাতে আমার একটা মজার অভিজ্ঞতার কথা বলতে পারি। একটি মিশনে আমার সঙ্গে স্থানীয় এক কর্মী কাজ করতেন। তিনি ‘কনফার্ম’ আর ‘ইনফর্ম’ শব্দ দুটো গুলিয়ে ফেলতেন। প্রতিবারই কারও সঙ্গে বৈঠকের ব্যাপারে জানাতে বললে (ইনফর্ম) সে তা নিশ্চিত (কনফার্ম) করে ফেলত। আবার কখনো কখনো আমরা বৈঠকের জন্য তৈরি হয়ে থাকতাম, কিন্তু শেষ পর্যন্ত বৈঠক আর হতো না। পরে বুঝতে পেরেছি, আমরা হয়তো বৈঠকের সময়টা নিশ্চিত (কনফার্ম) করেছি, কিন্তু অন্য পক্ষকে কেবল বৈঠকের ব্যাপারে অবহিত (ইনফর্ম) করা হয়েছে।

    আরেকটা মজার অভিজ্ঞতার কথা বলি। একবার একটি দেশে কাজ করার সময় বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে আমরা অতিথিদের হাতে রজনীগন্ধার গুচ্ছ তুলে দিই। এতে করে অতিথিরা ভড়কে যান। পরে জেনেছি, ওই দেশে শুধু শবযাত্রায় সাদা ফুল ব্যবহার করা হয়!

    পেশাগত জীবনের নানা পর্বে আমাকে একেকটা ‘টাইমজোনে’ কাজ করতে হয়েছে। ফলে একজন কূটনীতিককে ধরে নিতে হয়, তাঁর কাজটা ২৪ ঘণ্টার। ঢাকায় যখন দাপ্তরিক কাজ শেষ হচ্ছে, ঠিক তখন নিউইয়র্কে দিনের কাজ শুরুর প্রস্তুতি চলছে। তাই কাজ করতে গিয়ে পরিবর্তিত সময়ের পাশাপাশি চারপাশের নতুন পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়াটাও জরুরি। নানা পর্বে নানা ধরনের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এগুলো রপ্ত করার চেষ্টা থাকতে হবে। এ ছাড়া সময়ানুবর্তিতা, শিষ্টাচার, এসবের অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে সচেতনভাবে।

    কূটনীতিকদের চাকরি সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে একটা ভুল ধারণা প্রচলিত। সেটা হচ্ছে, এই চাকরির সুবাদে নানা দেশে ঘোরাঘুরি করা যায়। এটা ঠিক নয়। কূটনীতিকদের বিদেশ সফরের বড় উপলক্ষ বিভিন্ন অনুষ্ঠানকে ঘিরে। সেখানে সভা-সমাবেশের সময়টা বাদ দিলে তাঁদের ঘুরে বেড়ানোর সময়টা সীমিত। তবে এটা নির্দ্বিধায় বলা যায়, বিদেশে অবস্থানের কারণে একটি দেশ, সে দেশের মানুষ, সেখানকার নানা কিছু সম্পর্কে অনেক ভালোভাবে জানার ও বোঝার সুযোগ তৈরি হয়। যেটা একজন পর্যটকের পক্ষে সম্ভব নয়।

    নানাভাবে একজন কূটনীতিক ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে ওঠেন। বিশ্বের নানান সংকট ও উল্লেখযোগ্য উদ্যোগের প্রক্রিয়ায় যুক্ত থেকে ইতিহাসের উপাদান হতে পারেন। বহুপক্ষীয় নানা উদ্যোগে একজন কূটনীতিককে দেশের কথা ভেবে, বিশেষ করে দেশের স্বার্থকে সমুন্নত রেখেই নৈর্ব্যক্তিক আচরণ প্রকাশে সচেষ্ট থাকতে হয়।

    কূটনীতিক হতে গিয়ে একজন ব্যক্তিকে অনেক ধরনের ত্যাগ স্বীকারে তৈরি থাকতে হয়। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ত্যাগ হচ্ছে নিজের আপনজন, প্রিয় স্বদেশের কাছ থেকে দূরে থাকা। এ বিষয়টি শুরুতে বেশ নাড়া দেয়। তাই এই পরিস্থিতিতে নিজেকে মানিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে সচেতন হতে হয়।

    সব শেষে গুরুত্বপূর্ণ হলো, দেশের সেবার মানসিকতা থেকে অনাবাসী বাংলাদেশি এবং অভিবাসীদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার আন্তরিক ইচ্ছা থাকতেই হবে।

  • আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
    শিক্ষাব্যবস্থায় সিঙ্গাপুরে নীরব বিপ্লব
    শিক্ষাব্যবস্থায় সিঙ্গাপুরে নীরব বিপ্লব