• লেইটেস্ট

    কামিং সুন

    বৃহস্পতিবার     ১৪ নভেম্বর, ২০১৯  

    সফলতা ও উন্নয়নে দরকার সঠিক তথ্য

    বি আওয়ার ফ্রেন্ডস

    বিএসবির পথচলার গৌরবোজ্জ্বল ২৬ বছর

    প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটেন লায়ন এম কে বাশার পিএমজেএফ। ছবি : সংগৃহীত

    বিএসবির পথচলার গৌরবোজ্জ্বল ২৬ বছর

    প্লানেট ডেস্ক | ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ১:৪৭ পূর্বাহ্ণ

    ঢাকাস্থ দেশব্যাপী নামকরা বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্ক স্টুডেন্ট কনসালটেন্সি ফার্ম হিসেবে ইতোমধ্যে ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছে। অর্জন করেছে বিদেশে পড়তে ইচ্ছুক শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের দৃঢ় আস্থা। ৩ সেপ্টেম্বর এক পা দু পা করে প্রতিষ্ঠানটি ২৬ বছরে পদার্পণ করেছে।এদিন কেক কাটাসহ নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে বিএসবি’র ২৬তম জন্মদিন পালিত হয়।

    ১৯৯৩ সালে বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের যাত্রা শুরু হয়। তারপর গত ২৫বছর বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্ক অর্জন করেছে অভাবনীয় সাফল্য। ২৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বিএসবি’র শিক্ষার্থীদের জন্য মাসব্যাপি নানা সুযোগ সুবিধা ঘোষণা করেছে। সেপ্টেম্বর মাসজুড়ে বিদেশে অধ্যয়নে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে সার্ভিস চার্জ সম্পূর্ণ ফ্রি। বিদেশে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের ক্ষেত্রে বিশেষ স্কলারশিপ প্রাপ্তিতে সহযোগিতা প্রদান।

    প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে অত্যন্ত আকর্ষণীয়ভাবে সাজানো হয় বিএসবি অফিসকে। আগত সবাইকে ফুল দিয়ে বরণ ও মিষ্টিমুখ করানো হয়। গুলশানস্থ বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের অফিসে আয়োজিত এ উপলক্ষে আলোচনা ও কেক কাটা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের সিইও এবং বিশিষ্ট শিক্ষা সংস্কারক লায়ন এম কে বাশার পিএমজেএফ। আরো উপস্থিত ছিলেন বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের নিবাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট খন্দকার সেলিমা রওশন।

    লায়ন এম কে বাশার ফিরে দেখা ২৬ বছরের স্মৃতির ঝুড়ি উন্মোচন করে প্রাপ্তি ও অপূর্ণতা তুলে ধরেন বলেন,  ‘আমরা অনেক কিছু পেয়েছি এবং শিক্ষার উন্নয়নে অনেক কিছু করেছি। বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্ক দেশের প্রায় ৭০ হাজার শিক্ষার্থীকে বিদেশের বিভিন্ন ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার সুযোগ করে দিয়েছে।’ তিনি আরো বলেনবি, ‘বিএসবির এ সুদীর্ঘ পথ চলায় যুক্ত হয়েছে নানা স্বীকৃতি, প্রাপ্তি, অসাধারণ সব খ্যাতি এবং সাফল্যময় অর্জন।

    দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতি ঘটলে দেশ অর্থনৈতিকভাবে কিভাবে লাভবান হবে তার নানা চিত্র তুলে ধরে এম কে বাশার বলেন, ‘ দেশে যদি বিশ্বের শিক্ষা ব্যবস্থার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে কোয়ালিটি শিক্ষা নিশ্চিত করা যায়, তবে প্রতি বছর ২৫ থেকে ৩০ হাজার শিক্ষার্থী যারা বিদেশে শিক্ষার জন্য যাচ্ছে, তাদের অনেকেই এদেশেই লেখাপড়া করতে পারবে। তাতে বৈদেশিক মুদ্রার সাশ্রয় হবে প্রায় ২০০০ কোটি টাকা।

    তিনি তার বক্তৃতায় আরও উল্লেখ করে বলেন, ইংল্যান্ড, আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়ার জিডিপির একটি বড় অংশ আসে শিক্ষাখাত থেকে। বাংলাদেশও এ তালিকায় যুক্ত হতে পারে। এজন্য যুগোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। আগামীতে শিক্ষায় নতুন স্বপ্ন ধারণ করে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন লায়ন বাশার।

    Comments

    comments

    ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

    ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

    ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮

    ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    ২০ জানুয়ারি ২০১৮

  • আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০  
    ডায়মন্ড আজাদের জাতীয় কৃতিত্ব
    ডায়মন্ড আজাদের জাতীয় কৃতিত্ব